পরিযায়ী শ্রমিকরা আসলে ‘না ঘর কা, না ঘাট কা’। ভোটার হিসেবে তাই তাঁদের দাম নেই।

0
12

আনন্দ মুখোপাধ্যায় :: ২৪ঘন্টা লাইভ :: ২১শে মে :: কলকাতা :: দেশ জুড়ে পরিযায়ী শ্রমিকদের দুরবস্থা দেখে এখন অনেকের মনেই প্রশ্ন, মানুষগুলোর কি কোনও মূল্য নেই ?
জনগণনা অনুযায়ী, ভারতের ৪০ কোটিরও বেশি মানুষ নিজের স্থায়ী ঠিকানা বা জন্মভিটেতে থাকেন না। কেউ বিদেশে, কেউ অন্য রাজ্যে, কেউ নিজের রাজ্যে থাকলেও গ্রাম ছেড়ে বড় শহরে। এঁদের একটা বড় অংশ আবার কয়েক মাসের জন্য বা কয়েক বছরের জন্য অন্য রাজ্যে কাজ করতে যান। আবার ফিরে আসেন। এঁরাই পরিযায়ী শ্রমিক। এঁদের সংখ্যা কত, তার কোনও সরকারি গণনা নেই। কেউ ভাবেননি।

এঁদের গ্রামের বাড়ির ভোটার তালিকায় নাম থাকে। কিন্তু ভোটের সময় তাঁরা অন্য শহরে কাজে আটকে থাকেন। শুধু ভোট দিতে টাকা খরচ করে বাড়ি ফেরার অর্থ বা তাগিদ তাঁদের থাকে না। যদি না কোনও রাজনৈতিক দল উদ্যোগী হয়ে তাঁদের ফেরানোর বন্দোবস্ত করে। কিন্তু সবাই তো আর একই এলাকার ভোটার নন। ফলে ঘরে ফিরলেও যে পরিযায়ী শ্রমিকেরা ভোটের অঙ্ক বদলে দিতে পারেন, এমন নয়। আর পেট চালাতে যে শহরে মাথা গুঁজতে হয়, সেখানে তো ভোটার তালিকায় নামই ওঠে না। ভোটের রাজনীতির ভাষায়, পরিযায়ী শ্রমিকেরা ‘ভোট ব্যাঙ্ক’ নন। ‘সুইং ভোট’ও নন। তাই তাঁদের ‘ভ্যালু’ নেই।

চার বছর আগে ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই গবেষক নিরথ গায়কোয়াড় ও গ্যারেথ নেলিস ভারত জুড়ে সমীক্ষা চালিয়ে বলেছিলেন, রাজনৈতিক নেতারা বিশ্বাস করেন যে পরিযায়ী শ্রমিকেরা কান্নাকাটি করলেও তাঁরা চোখ-কান বুজে থাকতেই পারেন। কারণ, ভিন্ রাজ্যে কাজ করতে যাওয়া এই শ্রমিকদের খুব সামান্য অংশই ভোট দেন। ফলে এঁদের সাহায্য করে বিশেষ রাজনৈতিক ফায়দা মিলবে না।

গত চুয়ান্নো দিনে এটাই দিনের আলোর মতো স্পষ্ট হয়েছে। শ্রমিকদের নিয়ে পিংপং খেলা চলছে। ২৫ মার্চ লকডাউন জারির পরে দিল্লির শ্রমিকেরা বাড়ির পথ ধরেছিলেন। রুটিরুজি বন্ধ। আবার কবে রোজগার মিলবে, জানা নেই। গ্রামে ফেরার ট্রেন-বাস নেই। তাই হাজার হাজার কিলোমিটার রাস্তা হেঁটেই বাড়ির দিকে রওনা দিয়েছিলেন তাঁরা। কিন্তু দিল্লির অরবিন্দ কেজরীবালের সরকার ঠুঁটো জগন্নাথ হয়েই বসেছিল। ওঁরা যে দিল্লির ভোটার নন। ওঁরা থাকলেই বা কী, না থাকলেই বা কী!

২৭ মার্চ নরেন্দ্র মোদীর সরকার নির্দেশ জারি করে, এ ভাবে যাওয়া চলবে না, ভাইরাস ছড়াবে। চল্লিশ দিন পরে সেই নিয়ম উল্টে ট্রেন-বাস চালু হয়ে গেল। কবে ট্রেন-বাস মিলবে, মিললেও টিকিটের টাকা জোগাড় হবে কি না, তা ভেবে শ্রমিকেরা আবারও হাঁটা শুরু করলেন। কোনও দিন হাঁটতে হাঁটতে রেললাইনেই শুয়ে পড়লে ট্রেনের চাকায় শরীরগুলো ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে গেল। কোনও দিন হাইওয়ের ধারে ট্রাকের চাকা পিষে দিল। তাতে কী ?

কোনও মুখ্যমন্ত্রী বলছেন, এখন শ্রমিকদের ফেরানো যাবে না। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে গেলে রাজ্যের মুখে চুনকালি পড়বে। কোনও মুখ্যমন্ত্রী আবার বলছেন, শ্রমিকদের যেতে দেওয়া চলবে না। লকডাউন ওঠার পরে কাজ করবে কে?
ওঁদের নিয়ে বোধ হয় এমন ছিনিমিনি খেলাই যায়। কারণ ওঁরা তো শুধুই পরিযায়ী শ্রমিক। ভোটের বাজারে গুরুত্বহীন।

ভোটার হিসেবে পরিযায়ী শ্রমিকদের কদর একমাত্র তখনই বাড়ে, যখন অল্প ভোটের ফারাকে খেলা ঘুরে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই লোকসভা ভোটের চেয়ে বিধানসভা বা পুর-নির্বাচনের সময় পরিযায়ী শ্রমিকদের বেশি খোঁজ পড়ে। কারণ সেখানে অল্প ভোটের ব্যবধানেই ফল বদলে যায়।

২০১১ সালে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা ভোট এর আদর্শ উদাহরণ। ভোটের আগে বামফ্রন্ট সরকারের পতন যখন প্রায় দেওয়াল লিখনের মতো স্পষ্ট, তখন সিপিএম নেতারা খড়কুটোর মতো এই পরিযায়ী শ্রমিকদের আঁকড়ে ধরার চেষ্টা করেছিলেন। সুশান্ত ঘোষের মতো তৎকালীন দোর্দণ্ডপ্রতাপ সিপিএম নেতা দিল্লির করোলবাগের পাড়ায় পাড়ায় ঘুরে বাঙালি শ্রমিকদের বোঝানোর চেষ্টা করেছিলেন, তাঁরা যেন রাজ্যে গিয়ে কাস্তে-হাতুড়িতে ভোটটা দিয়ে আসেন। এ কথা টের পেয়ে সে সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডান হাত এবং অধুনা বিজেপি নেতা মুকুল রায়ও একই ভাবে উদ্যোগী হয়েছিলেন।

কেরলের কোচি শহরের কাছে পেরুমবাভুরে হাজার হাজার বাঙালি শ্রমিকের বাস। বাংলায় বিধানসভা ভোটের সময় পেরুমবাভুর থেকে মালদা, মুর্শিদাবাদের বাস ছাড়ে। বলা বাহুল্য, যাত্রার খরচ জোগান কোনও না কোনও রাজনৈতিক দলের নেতারাই। আড়াই হাজার কিলোমিটারের বেশি পথ। শারীরিক কষ্ট হলেও গরিব মানুষগুলো আপত্তি করেন না। ভয় পান, যদি ভোটার তালিকা থেকে নাম বাদ পড়ে যায়! কিংবা, যদি রেশন কার্ড বাতিল হয়ে যায়! শুধু বাংলা নয়, সব রাজ্যেই পরিযায়ী শ্রমিকদের মনে এই ভয় থাকে। তাঁরা যে আসলে ‘না ঘর কা, না ঘাট কা’। ভোটার হিসেবে তাই তাঁদের দাম নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here