অবলুপ্তির পথে বাঁকুড়ার শতাব্দী প্রাচীন পুতুল নাচ !

0
12

অনিকেত বাউরী::২৪ঘন্টা লাইভ ::৯ই জুন :: বাঁকুড়া :: সালটা ছিল ১৯৭৭। সোনামুখীর রাধানগরে প্রথম শো। ২৫ জনের পুতুল নাচের দল গিয়ে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স,বাহাবা হাততালি কুড়ানো, তারপর সব ইতিহাস। ভালোই চলছিল, পূজো পার্বণ মেলা, পারিবারিক অনুষ্ঠানে মিলিত পুতুলনাচের বায়না।বিনোদনে নাটক, থিয়েটারের পাশাপাশি পুতুলনাচের জায়গায় এসেছে বাইস্কোপ। প্রথমে সিনেমা ছিল স্থিরচিত্র, কিন্তু বিবর্তনের কালে বিজ্ঞান উন্নত হয়েছে স্থির চিত্র পাল্টে গেছে চলমান উন্নত সিনেমায়। তখন থেকেই মানুষ অনেক বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করতেন বিনোদন মানে সিনেমাতে।

নতুন প্রজন্মের ছেলেমেয়েরা আধুনিকতায় মজেছেন। এখন হাতে হাতে এন্ড্রয়েড ফোন হাতের মুঠোয় বিনোদন। কে ঘন্টার পর ঘন্টা খরচ করবে গরমের মধ্যে পুতুল নাচ দেখবার জন্য। ভাঁটা পড়েছে পুতুল নাচ শিল্পে। তবুও বর্তমান সরকারের আমলে মুখ্যমন্ত্রী ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় শিল্পীরা পেয়েছেন কাজ।প্রায়ই সরকারি বিভিন্ন প্রোগ্রাম ও মেলায় মিলতো পুতুল নিয়ে হাতের কারসাজি দেখানোর সুযোগ।কিন্তু এই করোনাকালে কার্যত লকডাউন সব শেষ করে দিল আক্ষেপ শিল্পীদের। এখন মানুষ বাইরেই বের হতে পারছেন না, তো কে দেখবে পুতুল নাচ।জেলার প্রায় ৬০ থেকে ৭০ জন শিল্পী পুতুল নাচের সঙ্গে যুক্ত ।

Advertisement

কিন্তু এখন সংখ্যাটা কমে এক অঙ্কে ঠেকেছে। তাতেও কাজ নেই, একে একে পুতুল নাচ শিল্পীরা পুতুল নাচ ছেড়ে চলে যাচ্ছেন, নাম লেখাচ্ছেন অন্য পেশায়। শিল্পের কদর নেই, পেটের টান,প্রাচীন পুতুল নাচ শিল্প আজ অবলুপ্তির পথে। কয়েকজন রয়ে গিয়েছেন ভালোবাসার টানে, আঁকড়ে ধরে। সর্বসাকুল্যে রোজকার সরকারের দেওয়া মাসিক হাজার টাকা। তাতে সংসারে দিন পাঁচেক চলে। কি হবে ভবিষ্যত, কেউ জানে না। সরকারের আবার মুখ তুলে চাইবেন। ঐতিহ্য প্রাচীন পুতুল নাচ আবার ফিরবে স্বমহিমায়। পুরানো গৌরব ফিরে পাবে পুতুল নাচ,সেই আশাতেই বুক বাঁধছেন শিল্পীরাও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here