চীনের সঙ্গে উত্তেজনার মধ্যেই রাফালকে স্বাগত জানালো আম্বালা এয়ার বেস !

0
41

আনন্দ মুখোপাধ্যায় :: ২৪ ঘন্টা লাইভ :: ২৯শে জুলাই :: নয়াদিল্লি :: চীনের সঙ্গে সীমান্ত উত্তেজনার মাঝেই ভারতে পৌঁছে গেল প্রথম দফার পাঁচটি অত্যাধুনিক রাফাল যুদ্ধবিমান। আজ বুধবার বেলা তিনটে নাগাদ হরিয়াণার আম্বালা বিমান ঘাঁটিতে রাফাল বিমানগুলো অবতরণ করে। পানি স্প্রে করে তাদের স্বাগত জানানো হয়। ভারতীয় আকাশপথে প্রবেশের পর আম্বালা পর্যন্ত তাদের তিরের ফলার মতো ‘ভি ফর্মেশনে’ এসকর্ট করে আনে ভারতীয় বিমান বাহিনীর দুটি ‘সুখোই–৩০’।

রাফালের নাম দেওয়া হয়েছে ‘সোনালী তির’। আম্বালায় তাদের স্বাগত জানাতে উপস্থিত ছিলেন বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার মার্শাল রাকেশ কুমার সিং ভাদৌরিয়া। ভারতীয় আকাশে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গেই বিমান বাহিনীর পক্ষ থেকে টুইট করে বলা হয়, ‘স্বাগত সোনালী তির। নীল আকাশ সর্বদা।’

আম্বালায় অবতরণের সঙ্গে সঙ্গেই প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং স্বাগত জানিয়ে টুইট করে বলেন, ভারতের সামরিক ইতিহাসে এক নব দিগন্ত রচিত হলো। বিমান বাহিনীর সক্ষমতার বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটবে এর মধ্য দিয়ে।

সোমবার ফ্রান্স থেকে উড়েছিল এই পাঁচ রাফাল। সেখানে তাদের বিদায় জানিয়েছিলেন ফ্রান্সে নিযুক্ত ভারতীয় রাষ্ট্রদূত জাবেদ আশরাফ। ৭ হাজার কিলোমিটার দূরত্বে আম্বালায় পৌঁছনোর পথে মঙ্গলবার যাত্রাবিরতি করা হয় আমিরাতে আল ডাফরায় ফরাসী বিমান ঘাঁটিতে। সেখান থেকে সোজা আম্বালা। মাঝে একবার মাঝ আকাশে বিমানগুলোয় জ্বালানি ভরা হয়। ফরাসী বিমান বাহিনী সেই দায়িত্ব পালন করে। রাফালের সঙ্গে ফ্রান্স ভারতে পাঠিয়েছে দুটি জ্বালানি বিমান। তাতে করোনার মোকাবিলায় পাঠানো হয়েছে ৭০টি ভেন্টিলেটর, ১ লাখ নমুনা পরীক্ষার কিট ও ১০ জনের চিকিৎসক–স্বাস্থ্যকর্মীর একটি দল।

হরিয়াণার আম্বালা ভারতীয় বিমান বাহিনীর একটা বড় ও গুরুত্বপূর্ণ ঘাঁটি। যে দুই স্কোয়াড্রন (মোট ৩৬টি) রাফাল ভারতে আসবে, তার অর্ধেক থাকবে আম্বালায়, বাকি এক স্কোয়াড্রনের ঘাঁটি হবে পশ্চিমবঙ্গের হাসিমারা। পাকিস্তান সীমান্ত থেকে আম্বালার দূরত্ব মাত্র ২০০ কিলোমিটার। এই কারণে রাফালের আগমনকে কেন্দ্র করে বাড়াবাড়ি রকমের নিরাপত্তা কড়াকড়ির নির্দেশ দেওয়া হয়। যেমন, বিমান ঘাঁটির আশপাশের চারটি গ্রামে দিনভর ১৪৪ ধারা জারি করা হয়, যার মোদ্দা কথা, এক জায়গায় চারজনের বেশি মানুষ জড় হতে পারবে না। গ্রামবাসীদের বাড়ির ছাদে উঠতে বারণ করা হয়। রাফালের অবতরণের ছবি তুলতে নিষেধ করা হয়। বিমান ঘাঁটির রাস্তায় ব্যারিকেড তৈরি করা হয়। তবে স্থানীয় বিধায়ক বলেন, গ্রামবাসীরা যেন সন্ধ্যায় প্রদীপ জ্বালিয়ে রাফালকে স্বাগত জানান।

আম্বালা বিমান ঘাঁটিতে রয়েছে ২ স্কোয়াড্রন ‘জাগুয়ার’ ও ১ স্কোয়াড্রন ‘মিগ–২১ বাইসন’। এর সঙ্গে ১ স্কোয়াড্রন রাফাল যুক্ত হবে। পুলওয়ামা বিস্ফোরণের বদলা নিতে পাকিস্তানের বালাকোটের উদ্দেশে ভারতীয় ‘মিরাজ’ ফাইটার এই আম্বালা থেকেই উড়েছিল। বুধবার যে ৫টি রাফাল ভারতে এল, তার মধ্যে ৩টি ‘সিঙ্গল সিটার’, ২টি ‘টুইন সিটার’। মোট ৩৬টি বিমানের মধ্যে কটি একজন চালাবেন ও কটি দুই পাইলট সে হিসাব বিমান বাহিনী দেয়নি। ২০২২ সালের মধ্যেই সবকটি রাফাল ভারত পেয়ে যাবে।

কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকারের আমলে ২০০৭ সালে ফ্রান্সের দাসোঁ এভিয়েশনের কাছ থেকে ১২৬টি রাফাল কেনার কথাবার্তা শুরু হয়। তখন খরচ ধরা হয়েছিল ৮০ কোটি টাকা । নরেন্দ্র মোদি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর পুরনো চুক্তি বাতিল করে নতুন চুক্তি সই হয়। ঠিক হয় ৫৯ হাজার কোটি টাকাতে ৩৬টি রাফাল কেনা হবে। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে এটাই হয়ে দাঁড়ায় প্রধান বিতর্কিত বিষয়। কংগ্রেসের পক্ষ থেকে দুর্নীতির অভিযোগ তোলা হয়েছিল। প্রচার করা হয়, বেশি দামে কম যুদ্ধবিমান কেনাই শুধু নয়, সরকারি সংস্থা ‘হ্যাল’কে উপেক্ষা করে অনিল আম্বানির বেসরকারি সংস্থাকে সুবিধা পাইয়ে দেওয়া হয়েছে। ভোটের ফলে অবশ্য প্রমান করে, বিরোধী প্রচারে দেশবাসী প্রভাবিত হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here