বিজেপি নেতা মনীশ শুক্লাকে কে কাছ থেকে ৬ টি গুলি, মৃত্ হাসপাতালে – ১২ ঘন্টার বারাকপুর বনধের ডাক

0
18

রবি কুমার সিং :: ২৪ ঘন্টা লাইভ :: ৫ই,অক্টবর :: টিটাগড় :: একেবারে পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক রেঞ্জ থেকে বিজেপি নেতা মণীশ শুক্লাকে একের পর এক গুলি। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়। রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় টিটাগড়-বারাকপুর অঞ্চল। অর্জুন সিং কৈলাস বিজয়বর্গীয়র কাছে অভিযোগে জানিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বারাকপুরের পুলিশ কমিশনার মনোজ বর্মা এবং অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার অর্জুন ঠাকুরকে তাঁকে খুনের ‘সুপারি’‌ দিয়েছেন। মণীশ শুক্ল খুনের ঘটনায় সিবিআই তদন্তের পাশাপাশি পুলিশের ভূমিকা খতিয়ে দেখারও দাবি জানিয়েছেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

উল্লেখ্য, জানা যায়, রবিবার রাতে তাঁর দলীয় কার্যালয়ের সামনেই বসে ছিলেন মণীশ শুক্লা কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই বাইকে করে বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতী আসে। তাঁকে ঘিরে ধরে। খুব কাছ থেকে তাঁকে লক্ষ্য করে অন্তত পাঁচ থেকে ছটি গুলি দুষ্কৃতীরা চালায় বলে অভিযোগ। রবিবার সন্ধেয় টিটাগড় থানার খুব কাছেই বিজেপি পার্টিঅ অফিসে ঢোকার সময় দুষ্কৃতীদের গুলিতে খুন হন মণীশ শুক্লা। দুষ্কৃতীরা বেশ কয়েকটি গুলি চালায়। মণীশ শুক্লার ঘাড় ও মাথায় লাগে। তাঁকে সঙ্গে সঙ্গে ব্যারাকপুরের বেসরকারি হাসপাতালে পরে বাইপাসের ধারে বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই মণীশ শুক্লাকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়।

এই ঘটনার পরেই অশান্ত হয়ে ওঠে টিটাগড়। বিটি রোড অবরোধ শুরু করেন বিজেপি নেতা কর্মীরা। বিজেপির তরফ থেকে সোমবার ব্যারাকপুর মহকুমায় ১২ ঘন্টার বনধের ডাক দেওয়া হয়। এই ঘটনায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন একাধিক বিজেপি নেতা। সৌমিত্র খান বলেছেন, বাংলায় সত্যি গণতন্ত্র নেই। শেষ রক্ত বিন্দু পর্যন্ত তিনি লড়ে যাবেন বলেও জানিয়েছেন সৌমিত্র।

এই ঘটনায় রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং। তিনি বলেছেন, মণীশ শুক্লা ছিল ছোট ভাইয়ের মতো। তাঁকে (অর্জুন) সবসময় ঢাল হয়ে আড়াল করত। এই ঘটনায় তৃণমূল ও পুলিশকে তাদের কুকর্মের জন্য ফল ভোগ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here