মুকুল রায়কে বিজেপিতে কোনঠাসা করেছে সংঘ পরিবার !

0
28

নিজস্ব সংবাদদাতা :: ২৪ ঘন্টা লাইভ :: ১০ই,জুলাই :: কাঁচরাপাড়া :: এখন যা পরিস্থিতি সঙ্ঘ শিবিরে কোনওভাবে ঠাঁই দেওয়া হবে না মুকুল অনুগামীদের। মুকুল রায়ের অবস্থা বিজেপিতে না ঘাটকা না ঘরকা। ২০২১ বিধানসভা ভোটের আগে সঙ্ঘ এমনই এক সিদ্ধান্ত নিল যে রাজ্য বিজেপির কাছে মুকুল ঘনিষ্ঠ নেতারা গুরুত্বহীন হয়ে গেলেন। কেননা বিজেপি সঙ্ঘের নির্দেশের বাইরে কোনও কাজ করে না।

মুকুল ও তাঁর অনুগামীদের জন্য এক এক করে দরজা বন্ধ করে দিল গেরুয়া শিবির। পদ্মশিবিরে যোগ দিয়েও সঙ্ঘের মর্যাদা পাচ্ছেন না তাঁরা। বিজেপিতে যোগ দিতে দু-বার ভাববেন নেতারা এখন তাঁদের না আছে ফেরার রাস্তা, না আছে বিজেপিতে কুলীন হওয়ার জোগাড়। সঙ্ঘ একে একে মুকুল ঘনিষ্ঠ সমস্ত নেতাদের থেকেই মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। ক্ষমতালোভী-পদলোভীদের সঙ্ঘ একেবারেই জায়গা দিতে নারাজ। তাই মুখের উপর দরজা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে একে একে। এরপর তৃণমূল বা অন্য দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া নিয়ে দু-বার ভাববে নেতা-নেত্রীরা।

যেমন ধুরুং তৃণমূলের এক অত্যন্ত প্রভাবশালী ছাত্রনেতার কথাই বলি । তিনি তৃণমূলে থাকাকালীন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়েরও খুব কাছের ছিলেন। সেই তিনিই দলের নিজের গুরুত্ব হারিয়েছিলেন নিজের কৃতকর্মের জন্য। এরপর তিনি মুকুলের হাত ধরে ঢুকে পড়েছিলেন বিজেপির অন্দরে।

তিনি পদ্মশিবিরে গিয়ে স্বল্প দিনেই বোঝা হয়ে পড়েছেন। দিল্লিতে দরবার করে বিজেপির ছাত্র সংগঠনে তিনি নিজের জন্য পদ জোগাড় করতে পারেননি। এবিভিপি রাজ্য সম্পাদকের পদ পেতে আগ্রহী ছিলেন তিনি। কিন্তু সঙ্ঘ তাঁকে বেশিদূর যেতে দেয়নি। কেন্দ্র ও রাজ্য বিজেপি বিজেপি নেতৃত্বকে সঙ্ঘ সাফ জানিয়ে দিয়েছে- মুকুল ঘনিষ্ঠ নেতাকে কোনও এন্ট্রি নয়।

এরপরেও কিন্তু বেশ কিছু মুকুল ঘনিষ্ঠ নেতা কর্মী মনে করছেন যে মুকুলবাবু হয়তো রাজ্য সভার এমপি হবেন এবং তাঁদের কিছু সুরাহা হবে । মুকুল ঘনিষ্ঠ কিছু কিছু সংবাদমাধ্যম তো কিছুদিন আগে ঘসানি করে দিয়েছিলেন যে মুকুলবাবু দিল্লি যাচ্ছেন এবং হনুমানজির মন্দিরে পুজোদিয়েই তিনি বিজেপির সদর দপ্তরে ঢুকবেন এবং মন্ত্রিত্ব নিয়েই ফিরবেন । কিন্তু গ্রাউন্ড জিরোতে দাঁড়িয়ে দেখা গেলো যে মুকুলবাবুকে শূন্য হাতেই ফিরতে হলো । মুকুল বাবুর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা এখন শুধুই সময়ের অপেক্ষা ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here